৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ , রাত ১১:০০ , বৃহস্পতিবার

ঢাকার মঞ্চে ‘ইতিহাসের মহানায়কেরা’

0

উপমহাদেশের মূলধারার ইতিহাস থেকে নির্মিত সাতটি মঞ্চনাটক নিয়ে উৎসব আয়োজন করেছে ইউনিভার্সেল থিয়েটার। উৎসবের শিরোনাম ‘ইতিহাসের মহানায়কেরা’। আগামী ৪ থেকে ১০ নভেম্বর এ উৎসব অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে।

উৎসব উদ্‌যাপন পর্ষদের সদস্যসচিব শওকত আলী মনসুর জানান, আগামী ৪ নভেম্বর পালাকারের ‘বাংলার মাটি বাংলার জল’ নাটক দিয়ে উৎসব শুরু হবে। উৎসবের অন্য নাটকগুলো হলো ৫ নভেম্বর থিয়েটারের ‘বারামখানা’, ৬ নভেম্বর চট্টগ্রামের শিল্পকলা একাডেমি রেপার্টরির ‘সূর্যসেন’, ৭ নভেম্বর লোকনাট্য দলের ‘মুজিব মানেই মুক্তি’, ৮ নভেম্বর ইউনিভার্সেল থিয়েটারের ‘মহাত্মা’, ৯ নভেম্বর এবং আরণ্যক নাট্যদলের ‘বিদ্যাসাগর’, ১০ নভেম্বর ভারতের কল্যাণী নাট্য ভাবনার ‘শ্রমণ’। প্রতিদিন সন্ধ্যা সাতটায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির প্রধান মিলনায়তনে নাটকগুলো মঞ্চস্থ হবে।

উৎসবের শেষ দিন সকাল ১০টায় সেমিনার আয়োজন করা হয়েছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সেমিনার কক্ষে। উৎসবের প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে মূল প্রবন্ধ পাঠ করবেন বিপ্লব বালা। আলোচক হিসেবে থাকবেন ড. ইনামুল হক ও ড. আরিফ হায়দার।

এই উৎসব আয়োজন প্রসঙ্গে ইউনিভার্সেল থিয়েটার থেকে জানানো হয়েছে, ‘অতীত ইতিহাস থেকে আমরা জানতে পারি, বারবার ঝড়-ঝঞ্ঝায় মানুষের কল্যাণে জ্বলে ওঠেন একজন মহানায়ক। আমরা নাট্যচর্চা করি। নাটক মানুষের আশা, আকাঙ্ক্ষা, সমস্যা, সমাধান সবকিছুর প্রতিফলন ঘটায়। ফলে মানুষের মধ্যে আন্তযোগাযোগ বৃদ্ধি পায় এবং সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে। এসবই শিল্পসৃষ্টি আর উপস্থাপনের মাধ্যমে অর্জন করা সম্ভব। যেহেতু শিল্পমাধ্যম মানুষকে আকৃষ্ট করে উপস্থাপিত বিষয়বস্তু শ্রোতা-দর্শকদের কাছে সহজবোধ্য হয়।

দর্শক মতামত ব্যক্ত করতে পারে এবং সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে অনুপ্রাণিত হয়। তাই আমরা সুন্দর সমাজ গড়ার উদ্দেশ্য শিল্পমাধ্যমকে বেছে নিয়েছি। পদক্ষেপ হিসেবে প্রথমেই জড়ো করেছি ইতিহাসের মহানায়কদের।

Print Friendly, PDF & Email
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn

Leave A Reply